জেরিন এখন কি স্বপ্ন দেখে জানাতে চাইলে জানান, ‘আমার একটা ইচ্ছা ছিল স্নাতক শেষ করে এমন একটা কাজে যোগ দেব যেখানে নিজের কর্মদক্ষতা যাচাই করতে পারব, ফোকাস করতে পারব। এখন আমি আরবান হেলথ নিয়ে কাজ করি। আপাতত স্বপ্ন হলো, পাবলিক হেলথে মাস্টার্স করার জন্য দেশের বাইরে যাব। সুযোগ পেলে পিএইচডি অর্জন করব।

এইউডব্লিউতে পড়াশোনার নানা বিষয় সম্পর্কেও বলেন জেরিন। তিনি বলেন, ‘এইউডব্লিউতে একটা সুবিধা হলো, এখানে সকল শিক্ষার্থীকে পড়াশোনার পাশাপাশি জব করতে হয়। কেউ টিচিং অ্যাসিস্ট্যান্ট, কেউ ল্যাব অ্যাসিস্ট্যান্ট হিসেবে কাজ করে। ফলে সবার মধ্যে এক ধরনের প্রোফেশনালিজম তৈরি হয়। এটা কর্মক্ষেত্রে কাজে দেয়।’

নতুন অদ্বিতীয়াদের পরামর্শ দিয়ে জেরিন বলেন, কখনো নিজের ওপর আস্থা হারানো যাবে না। সব বাধা বিপত্তিতে সাহস রাখতে হবে। সব শেষে জেরিন তাঁর পড়াশোনার পথকে মসৃণ করার জন্য প্রথম আলো ট্রাস্টকে কৃতজ্ঞতা জানান।

অদ্বিতীয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন