বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আফসানা তাঁর বাবা-মায়ের প্রথম কন্যা সন্তান যিনি স্নাতক (সম্মান) সম্পন্ন করেছেন। তিনি জানান,‘এখানে আমি লিঙ্গভিত্তিক সহিংসতা, সামাজিক স্টেরিওটাইপ্‌স নিয়ে কাজ করছি। আমি এখানে টিম লিডার হিসাবে কাজ করছি। এর পেছনে প্রথম আলো ও এইউডব্লিউ চালিকা শক্তি হিসাবে কাজ করেছে। আমাকে শিক্ষাবৃত্তি দেওয়ার জন্য তাদের ধন্যবাদ জানাই।’

default-image

এইউডব্লিউ আপনাকে কীভাবে তৈরি করল জানাতে চাইলে জানান, ‘এখানে আসার আগে আমি বাংলা মাধ্যম পড়াশোনা করেছি। আসলে আমরা যারা বাংলা মিডিয়াম থেকে আসা তাদের একটু সমস্যা হয় প্রথম দিকে। কারণ বেশির ভাগ বিদেশি শিক্ষক, তাঁদের এ্যাকসেন্ট ধরতে একটু সমস্যা হয়। তবে এইউডব্লিউতে একটা বিষয় হলো-প্রথম বছর আমাদের ফাউন্ডেশন কোর্স করতে হয়েছে। যার মাধ্যমে টিচারদের সঙ্গে ক্লোজ ইন্টারেক্ট করেছি, আমাদের বিভিন্ন গ্রুপ ওয়ার্কের মাধ্যমে কাজ করেছি। এগুলোর মাধ্যমে ট্রেইনড করা হয়েছে, লিডারশিপ স্কিল তৈরি করেছে। তা ছাড়া ভিনদেশিদের সঙ্গে সব সময় কমিউনিকেশন করা, থাকা, খাওয়া, গ্রুপ ওয়ার্ক করার কারণে অনেক স্কিল ডেভেলপ করেছে। এটা চাকরি ক্ষেত্রে অনেক কাজে দিয়েছে।আমি দেখেছি যে, যারা এইউডব্লিউ থেকে আসে তাদের একটু আলাদাভাবে ট্রিট করে বেসরকারি বিভিন্ন সংস্থায়।’

বর্তমানে যারা পড়ছে এবং নতুন অদ্বিতীয়াদের জন্য পরামর্শ কি হবে জানতে চাইলে আফসানা বলেন, ‘এ ক্ষেত্রে আমি বলব, করোনার আগে সব একসাথে হত। এখন অনলাইনে হচ্ছে। পরিস্থিতি ভালো হলে সবাই একসাথে গ্রুপ ওয়ার্ক করতে হবে। নিজের শতভাগ দিতে হবে। কোনোভাবে ভেঙে পড়া যাবে না। সিজিপিএ যেমন দরকার, স্কিলটাও গুরুত্বপূর্ণ। সব সময় এগিয়ে যাওয়ার প্রচেষ্টা থাকতে হবে। ’

কী স্বপ্ন দেখে আফসানা? এর উত্তরে তিনি বলেন, ‘যেহেতু জেন্ডার ইস্যু নিকে কাজ করছি, সেহেতু এই বিষয়ের ওপর আরও পড়াশোনা ও স্কিল অর্জন করতে চাই। সে জন্য দেশের বাইরে গিয়ে জেন্ডার বা নারীর ক্ষমতায়ন নিয়ে উচ্চতর পড়াশোনা করে এই সেক্টরে কাজ করব।’

বাবা-মা আফসানা নিয়ে কি স্বপ্ন দেখে জানতে চাইলে জানান, ‘আমার বাবা-মা শুরু থেকেই অনেক সাপোর্টিভ ছিল। আমি এখন যে আবস্থানে আছি, তা নিয়ে সব সময় গর্ববোধ করেন। আত্মীয়-স্বজনদের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনার সময় আমাকে উদাহরণ হিসেবে টানেন। তখন খুব ভালো লাগে আমার।’

উল্লেখ্য, নারীর ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে ২০১২ সাল থেকে এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেন এবং প্রথম আলো ‘ফার্স্ট ফিমেল ইন দা ফ্যামিলি স্কলারশিপ অ্যাওয়ার্ড’ নামে শিক্ষাবৃত্তি প্রদান শুরু করে। প্রতিবছর পরিবারের প্রথম নারী অথচ অসচ্ছল, যিনি উচ্চতর শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে সমাজ গঠনে আগ্রহী, এ রকম ১০ জনকে ট্রান্সকম গ্রুপের সহায়তায় এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেনে এ শিক্ষাবৃত্তি দেওয়া শুরু করে প্রথম আলো ট্রাস্ট। ট্রান্সকমের সহায়তায় ২০১৬ সাল পর্যন্ত ৪২ জন শিক্ষার্থী এই বৃত্তি পেয়েছেন।

২০১৭ সাল থেকে আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড এই শিক্ষাবৃত্তির দায়িত্ব নেয়। নতুনভাবে নামকরণ করা হয় ‘অদ্বিতীয়া’ নামে। আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেডের সহায়তায় ৩৬ জনসহ এ পর্যন্ত মোট ৭৮ জন শিক্ষার্থী এই বৃত্তি পেয়েছেন (আগস্ট ২০২১ পর্যন্ত)। এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেনও তাঁদের আবাসন, টিউশন ফি সুবিধাসহ নানা সুযোগ দেয়।

অনুষ্ঠানটি একযোগে সম্প্রচারিত হয় প্রথম আলো ও প্রথম আলো ট্রাস্টের ফেসবুক ও ইউটিউব চ্যানেল থেকে। সঞ্চালনা করেন প্রথম আলো ট্রাস্টের সমন্বয়ক মাহবুবা সুলতানা।

অদ্বিতীয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন