বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক ডা. আহমেদ হেলাল বলেন, ‘ধরা যাক একটি শিশু ফার্মের মুরগির ডিমের অমলেট খাবে, নাকি দেশি মুরগির ডিমের অমলেট খাবে এই সিদ্ধান্ত তাকে নিতে হবে। মস্তিষ্কের যে সার্কিটটি কাজ করে বড় হয়ে ওই ব্যক্তি যুদ্ধক্ষেত্রে গিয়ে, যুদ্ধ করবে, না কি আত্মসমর্পণ করবে, ওখানেও মস্তিষ্কের ওই সার্কিটটি একই কাজ করে। মস্তিষ্কের সার্কিট যদি সচল না থাকে তাহলে বন্ধুরা বলবে চলো মাদক খাই। মাদক গ্রহণকে না বলার মতো সক্ষমতা থাকতে হবে। পছন্দ-অপছন্দ করার সক্ষমতা থাকা চাই। ছোট ছোট সিদ্ধান্ত নেওয়ার অনুশীলন করতে হবে।ব্যক্তিত্বের বিকাশ যদি দুর্বল থাকে, পছন্দ-অপছন্দকে শিশুকাল থেকে প্রকাশ করতে না পারলে, শৈশবে ছোট ছোট বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা থাকতে হবে। তাহলে বড় হয়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারবে।’

মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন