বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তিনি আরও বলেন, ’মাদকের ওপর নির্ভরশীলতা তৈরি হলেও ধৈর্য ধরে চিকিৎসা করলে মাদকমুক্ত হওয়া সম্ভব। তবে মনে রাখতে হবে যে মাদকমুক্ত হতে পারাটাই শেষ কথা নয়, রিল্যাপ্স বা পুনরায় আসক্ত হওয়ার ঝুঁকি থেকেই যায়। বিশেষ করে পূর্ণাঙ্গ চিকিত্সা না নিলে বা চিকিৎসারর সব ধাপ ঠিকমতো পার না করলে বা বিশেষজ্ঞের উপদেশ অনুযায়ী না চললে পুনরায় আসক্তির ঝুঁকি বাড়ে। সেই ঝুঁকি দূর করার জন্য জীবনযাপনের পদ্ধতি পরিবর্তন, পরিপূর্ণ চিকিত্সা, সোশ্যাল থেরাপি বা সামাজিক সহায়তা এবং উপযুক্ত পুনর্বাসন করা খুবই জরুরি। মনে রাখতে হবে, মাদকাসক্তি মস্তিষ্কের রোগ। এর রয়েছে বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা। তাই এর চিকিৎসায় অবশ্যই বিজ্ঞাননির্দেশিত প্রক্রিয়াগুলো অনুসরণ করতে হবে।’

উল্লেখ্য করোনাকালে প্রথম আলো ট্রাস্টের মাদকবিরোধী অনলাইন পরামর্শ সভা হয়েছে ২৫টি। প্রথম আলো ও ট্রাস্টের ফেসবুক পেজ এবং প্রথম আলোর ইউটিউব চ্যানেল থেকে এই আয়োজনটি সরাসরি সম্প্রচার করা হয়। দর্শকেরা সরাসরি যুক্ত হয়ে বিশেষজ্ঞ মনোরোগ চিকিৎসকদের প্রশ্ন করে প্রয়োজনীয় উত্তর জেনে নেন।

মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন