বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এ সময় মেহেদীর বাবা শফিক মাঝি বলেন, ‘পড়ালেহা করলে ট্যাকা কামাইতে অনেক সময় লাগে। তা ছাড়া পড়ালেহা অনেক খরচ, নদীতে মাছ ধরতে পারলেই ট্যাকা। যদিও আমি এই সব পোলাপাইনরে বুঝাইতে পারি না, অরা কামের ডরে স্কুলে জাইতে চায়।’ কথাগুলি শুনে মো. আকতার হোসেন বলেন, ‘আসলে আপনার ধারণা ভুল। নদীতে মাছ ধরা অনেক কষ্টের কাজ এবং সব সময় নদীতে মাছ পাওয়া যায় না। আর খরচের ব্যাপারে হয়তো আপনার ধারণা নেই। প্রথম আলো ট্রাস্ট পরিচালিত আমাদের স্কুলে কোনো ধরণের খরচ হয় না। এখানে সরকারিভাবে প্রদত্ত বিনা মূল্যে বই ছাড়াও বিনা বেতন, বিনা মূল্যে শিক্ষা উপকরণ, স্কুল ড্রেস ও শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়ে থাকে। দুর্যোগকালীন সময়ে আর্থিক সাহায্য প্রদান ও শিক্ষা সফরের আয়োজন করে থাকে, যা আপনার সন্তানের পড়াশোনার সহায়ক।’

এসব শুনে শফিক মাঝি তার সন্তানকে স্কুলে পাঠাতে রাজি হন এবং বলেন, ‘ স্যার আম্নে যেহেতু কইছেন পড়ালেহায় আম্নেগো স্কুলে খরচাপাতি নাই, তাই আম্নের আতেই আমার পোলাডারে দিলাম। ওর দায়িত্ব আম্নেগো।’

এরপর থেকে মেহেদী নদীতে মাছ ধরতে কম যেত। স্কুলের পড়াশোনায় মনোযোগী হওয়ার পাশাপাশি স্কুলের বিভিন্ন কাজে অংশগ্রহণ করে ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণির বার্ষিক উত্তীর্ণ হন। ২০১৬ সালে অত্র বিদ্যালয় থেকে অনুষ্ঠিত জেএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে সফলভাবে উত্তীর্ণ হন। একইভাবে এসএসসি পরীক্ষায়ও ভালো ফল অর্জন করেন মেহেদী।এ বছর তিনি ভোলা সরকারি কলেজে থেকে ব্যবসায় শাখা থেকে এইচএসসি পরিক্ষা দেবেন।

বাংলাদেশের প্রত্যন্ত এলাকায় যেখানে বহুদিন শিক্ষার আলো পৌঁছায়নি এ রকম অবহেলিত কয়েকটি এলাকায় শিক্ষার আলো পৌঁছে দিচ্ছে প্রথম আলো ট্রাস্ট। সামিট গ্রুপের আর্থিক সহায়তায় প্রথম আলো ট্রাস্ট মদনপুর আলোর পাঠশালাসহ ৬টি স্কুল পরিচালনা করছে।

মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন