বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ইয়াসে ক্ষতিগ্রস্ত মদনপুরের রাস্তাঘাট এখনো সংস্কার হয়নি। তাই জোয়ার ধরে প্রথম আলো ট্রাস্টের ত্রাণের নৌকা মদনপুর আলোর পাঠশালার কাছের একটি খালের ঘাটে নোঙর করে। ধরাধরি করে ত্রাণের বস্তা নামানো হয় চর টবগী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে। সেখানেই শিক্ষার্থীদের দাঁড় করিয়ে ত্রাণের বস্তা দেওয়া হয়।
অষ্টম শ্রেণির আরেক শিক্ষার্থী শাহানা আক্তারের বাবা একজন জেলে। কোনো দিন মাছ পান, কোনো দিন পান না। অনেক কষ্টে চলছে তাঁদের সংসার। এর মধ্যেই শাহানাকে খেয়ে না খেয়ে পড়াশোনা করতে হচ্ছে।

শাহানা বলে, ‘ত্রাণ পেয়ে ভালোভাবে ঈদ করতে পারব। ধন্যবাদ প্রথম আলো ট্রাস্টকে।’

প্রতিবার ভালোভাবে ঈদ করার জন্য প্রথম আলো ট্রাস্ট কিছু না কিছু দিচ্ছে, বলে সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থী সোনিয়া আক্তার। প্রতিবছরই ঈদে প্রথম আলো ট্রাস্ট সাহায্য-সহযোগিতা করে। সবাই ভুলে গেলেও প্রথম আলো ট্রাস্ট ভোলে না, জানান অভিভাবক সুরমা বেগম, আ. রশিদ, মো. জাকির হোসেন, কোরবান আলী, জালাল আহমেদ, আজাদ মাঝি, মো. আলাউদ্দিন, আবু তাহের, আব্দুস শহিদ ও মারজান বেগম।

ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ে মারিয়া। তারা চার ভাইবোন। তার বাবা জেলে। মারিয়া বলে, ‘কোনো সুম মাছ পায়, আবার কোনো সুম পায় না। সংসারে অভাব।’

ত্রাণ বিতরণের সময় উপস্থিত থেকে সহযোগিতা করেছেন মদনপুর আলোর পাঠশালার প্রধান শিক্ষক আক্তার হোসেন, সহকারী শিক্ষক সাইফুল ইসলাম, বন্ধুসভার সহসভাপতি হেলাল উদ্দিন মাষ্টার, সহকারী শিক্ষক আল আমিন, আলী আজগর, আক্তার হোসেন, বন্ধুসভার সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম, আরজে শান্ত, আজিজ রায়হান, মেহেদী আহাসান, প্রথম আলো প্রতিনিধি নেয়ামতউল্যাহ, মদনপুর আলোর পাঠশালার ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ।

বন্ধুসভার সদস্যরা শনিবার থেকে ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমে সহায়তা করছেন।

আলোর পাঠশালা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন