বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী জীবন আলী বলেন, স্কুল খোলার পর আমাকে অনেক ভালো লাগছে। অনেক দিন পর বন্ধুদের সঙ্গে কথাবার্তা, চলাফেরা করে আমার খুব আনন্দ লাগছে। আবার পড়ালেখার প্রতিও মনোযোগ বাড়ছে।

আলোর পাঠশালার দশম শ্রেণির আরেকজন শিক্ষার্থী শুভ দাস বলে, আমি ২০২২ সালে এসএসসি পরীক্ষা দিব। কিন্তু আমাদের আগের ব্যাচের পরীক্ষার্থীদের এখনো পরীক্ষা শেষ হয়নি। আমাদের কখন পরীক্ষা হবে বুঝতে পারছি না। দীর্ঘ দিন স্কুল বন্ধ থাকার কারণে ভালো পড়াশোনা করতে পারিনি। এসএসসি পরীক্ষার জন্য যথেষ্ট সময় না পেলে ভালো ফলাফল করা খুব কঠিন হবে। আবার অ্যাসাইনমেন্ট লেখতেও ভালো লাগে না। আর আমি অটোপাসও চাই না। পরীক্ষার মাধ্যমেই ফলাফল অর্জন করতে চাই।

বাংলাদেশের প্রত্যন্ত এলাকায় যেখানে বহুদিন শিক্ষার আলো পৌঁছায়নি এ রকম অবহেলিত কয়েকটি এলাকায় শিক্ষার আলো পৌঁছে দিচ্ছে প্রথম আলো ট্রাস্ট। সামিট গ্রুপের আর্থিক সহায়তায় প্রথম আলো ট্রাস্ট গুড়িহারী-কামদেবপুর আলোর পাঠশালা পাঠশালাসহ ৬টি স্কুল পরিচালনা করছে।

মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন