বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ফুয়াদের মা মোসা. সেলিনা বেগম বলেন, ‘আমার স্বামী মারা যাওয়ার পর আমি হতাশায় ভুগছিলাম। কিভাবে আমার দুটো সন্তানকে মানুষ করব, তাদের পড়ালেখার খরচ বহন করব। আলোর পাঠশালা প্রতিষ্ঠা হওয়ার পর একদিন একজন ব্যক্তির মাধ্যমে জানতে পারলাম যে, আলোর পাঠশালাতে পড়াতে কোন খরচ দিতে হয় না। একদিন আলোর পাঠশালার কমিউনিটি মিটিং এ আমি উপস্থিত হলাম। আর জানতে পারলাম সত্যি আলোর পাঠশালাতে পড়ালে কোন খরচ দিতে হয় না বরং স্কুল থেকে পাওয়া যায় অনেক উপহার। দুই ছেলেকে এই স্কুলে ভর্তি করানোর পর তাদের পড়ালেখা করার জন্য আমার কোন খরচ দিতে হয়নি। স্কুল থেকে অনেক বার অনেক কিছু উপহার পেয়েছি। এখন আমি পুরোপুরি স্বস্তিতে আছি যে, আলোর পাঠশালার জন্য আমার দুই ছেলেকে অন্তত এসএসসি পর্যন্ত পড়ালেখা করাতে পারব।’

বাংলাদেশের প্রত্যন্ত এলাকায় যেখানে বহুদিন শিক্ষার আলো পৌঁছায়নি এ রকম অবহেলিত কয়েকটি এলাকায় শিক্ষার আলো পৌঁছে দিচ্ছে প্রথম আলো ট্রাস্ট। সামিট গ্রুপের আর্থিক সহায়তায় প্রথম আলো ট্রাস্ট গুড়িহারি কামদেবপুর আলোর পাঠশালাসহ ৬টি স্কুল পরিচালনা করছে।

মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন