default-image

নরসিংদীর রায়পুরার হাইরমারা ইউনিয়নের ১২ জন রোগীর চোখের ছানির অস্ত্রোপচার করা হয়েছে প্রথম আলো ট্রাস্টের উদ্যোগে। এনভয় গ্রুপের অর্থায়নে গতকাল সোমবার রাজধানীর রায়েরবাজারে বাংলাদেশ আই ট্রাস্ট হাসপাতালে অস্ত্রোপচার করা হয়।

আয়োজকেরা জানান, রায়পুরার দড়ি হাইরমারা গ্রামে গত রোববার চক্ষুশিবিরের আয়োজন করে প্রথম আলো ট্রাস্ট। চোখের সমস্যায় ভুগছেন এমন শতাধিক রোগী চক্ষুশিবিরে প্রাথমিক চিকিৎসা নিতে যান। সেখানে চিকিৎসকেরা ৩৫ জনকে বাছাই করেন, যাঁদের চোখে ছানি পড়েছে। তাঁদের মধ্যে ১৮ জনকে ছানির অস্ত্রোপচারের জন্য ঢাকায় আনা হয়। এঁদের মধ্যে গতকাল ১২ জনের চোখের ছানির অস্ত্রোপচার হয়। বাকি ৬ জনের জন্য পৃথক চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়।

চোখে ছানি পড়ায় কয়েক বছর ধরে ঝাপসা দেখছেন রোকেয়া বেগম। বিনা মূল্যে চিকিৎসার সুযোগ পাওয়ায় তিনি আবার ভালোভাবে দেখার আশা করছেন। অস্ত্রোপচার করা অন্য রোগীরা হলেন আলী হোসেন, মো. আমিরুল, ছাত্তার, নুরুল ইসলাম, সামছুল হক, নুরুল হক, আমজাদ হোসেন, রাজিয়া বেগম, সালমা বেগম, জোবেদা বেগম ও সাহেরা খাতুন। তাঁদের বয়স ৫০ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে।

রোববার চক্ষুশিবিরে রোগীদের চোখ পরীক্ষা করে ব্যবস্থাপত্র দেন চিকিৎসক মো. আরশাদ উদ জামান। তাঁকে সহযোগিতা করেন ময়দুল ইসলাম, মামুনুর রশিদ ও আবু নাসের। আরশাদ বলেন, প্রত্যন্ত এলাকায় চক্ষুরোগ চিকিৎসা বিষয়ে সচেতনতার অভাব রয়েছে। রোগীদের মধ্যে বেশির ভাগের চোখে ছানি ও ইনফেকশনের সমস্যা রয়েছে। কারও কারও চোখে ছিল মাংস বৃদ্ধির সমস্যা।

ঢাকায় ছানির অস্ত্রোপচারের জন্য আই ট্রাস্ট হাসপাতালের ছয়জন চিকিৎসকের সমন্বয়ে একটি বোর্ড গঠন করা হয়। এতে ছিলেন আশরাফুল হক, মাহযিবা রহমান চৌধুরী, আহসানুল হক, সানজিদা আকতার, সারাহ রহমান ও সারওয়াত রহমান।

অস্ত্রোপচার শেষে দড়ি হাইরমারা গ্রামের আমজাদ হোসেন বলেন, ‘৮-১০ বছর ধরে চোখে ঝাপসা দেখি। ডাক্তার কইছে, চোখ নাকি ভালো হইয়া যাইব।’

বাংলাদেশ আই ট্রাস্ট হাসপাতাল একটি অলাভজনক সেবামূলক প্রতিষ্ঠান। শুরু থেকেই বিভিন্ন ক্যাম্প ও কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দরিদ্র রোগীদের বিনা মূল্যে ছানির অস্ত্রোপচারসহ নানা চিকিৎসা দিয়ে আসছে। ঢাকা ও ঢাকার বাইরে এই পর্যন্ত ১৫০টি ক্যাম্প করেছে তারা।

অন্যান্য প্রকল্পের পাশাপাশি প্রথম আলো ট্রাস্ট দড়ি হাইরমারা গ্রামের সাদাত স্মৃতি সদনে প্রতি সপ্তাহে ১১০ জন রোগীকে বিনা মূল্যে চিকিৎসা দিয়ে থাকে এনভয় গ্রুপের আর্থিক সহযোগিতায়।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0